প্রবাস বার্তা টোয়েন্টিফোর ডটকম :: বাংলাদেশীদের জন্য যুক্তরাজ্যের রয়েছে বাংলাদেশের তিনটি  দূতাবাস। লন্ডন প্রধান দূতাবাস এছাড়া বার্মিংহাম ও ম্যানচেষ্টার রয়েছে দুটি সহকারি দূতাবাস। মানচেষ্টার বাংলাদেশ দূতাবাসের সহকারী হাইকমিশনার জনাব আবু নাসের মুহাম্মদ আনোয়ারুল ইসলাম নিয়ম বহির্ভূতভাবে নানা অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছেন‌। সরকারী বিধি নিষেধ না মেনে তার নিজের ইচ্ছে মত দূতাবাস চালিয়ে যাচ্ছেন। এ নিয়ে মানচেষ্টার বাংলাদেশি কমিউনিটির মধ্যে ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে। উনার দায়িত্ব কালীন সময়ে বেশ কিছু মৃত ব্যক্তিদের কফিনের উপর জাতীয় পতাকা দিয়ে সম্মান প্রদর্শন করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

কমিউনিটির মধ্যে প্রশ্ন উঠেছে জাতীয় পতাকা কারা পাবে। আমরা জানি প্রত্যেকটি দেশের জাতীয় পতাকা রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ পরিচয় বহন করে এবং এর পবিত্রতা রক্ষা করার দায়িত্ব সকল নাগরিকের। এই দায়িত্ব বোধ থেকে ম্যানচেস্টারের সচেতন মহল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এর প্রতিবাদ  জানাচ্ছেন।

বাংলাদেশ দূতাবাসের সহকারী হাইকমিশনার আবু নাসের মুহাম্মদ আনোয়ারুল ইসলাম মৃত ব্যক্তিদের কফিনের উপর জাতীয় পতাকা প্রদানের মাধ্যমে জাতীয় পতাকার অবমাননা করা হয়েছে বলে সচেতন মহল মনে করেন।

গত নভেম্বর ২০২০ ম্যানচেস্টারের প্রবীণ মুরব্বি জনাব গোলাম মোস্তফা সাহেবের মৃত্যুর পর ম্যানচেস্টারে নামাজে জানাজার পর বাংলাদেশ দূতাবাসের সহকারী হাই কমিশনার জনাব আবু নাসার মোঃ আনোয়ারুল ইসলাম দূতাবাসের পক্ষ থেকে জনাব গোলাম মোস্তফার কফিনে জাতীয় পতাকা দিয়ে যে অবমাননা করেছেন তা সচেতন বাংলাদেশীদের নজর কেড়েছে এবং অনেকে হতাশা নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন। সচেতন মহলের প্রশ্ন জাতীয় পতাকা কে বিশেষ কোনো ব্যক্তির জন্য ব্যবহৃত হতে পারে না।

সচেতন মহল জানতে চান গোলাম মোস্তফা চৌধুরী তার মৃত্যুর পর তার কফিনে বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা কেন দেয়া হয়েছিল। তিনি কোন বিশিষ্ট ব্যক্তি নন। তিনি সাধারণ একজন কমিউনিটির নেতা। তাই বলে জাতীয় ভাবে বা রাষ্ট্রীয়ভাবে কোন স্বীকৃত প্রাপ্ত ব্যক্তি ছাড়া তাকে সম্মান জানানোর কোন নিয়ম নেই বলে সচেতন মহল মনে করেন ‌। তাদের মধ্যে অনেকে প্রশ্ন করেন গোলাম মোস্তফা সাহেবের মরদেহ বাংলাদেশ প্রেরণ করা হয়েছিল এবং সেখানে তার গ্রামের বাড়িতে নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়েছিল।  তাহলে সেখানে কেন রাষ্ট্রীয়ভাবে সম্মান জানিয়ে তাকে দাফন করা হলো না।

ইতিপূর্বে এই ধরনের আরো অনেক  ঘটনা ঘটেছে বলে সচেতন মহল আমাদেরকে জানিয়েছেন ‌।  বাংলাদেশ দূতাবাসের সহকারী হাই কমিশনার কর্তৃক এহেন কার্যকলাপের তীব্র নিন্দা, ক্ষোভ জানিয়ে  অবিলম্বে এর সুষ্ট তদন্ত দাবি জানিয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here